Skip to content

অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, চিকিৎসক-নার্সের শাস্তির দাবি | বাংলাদেশ

অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, চিকিৎসক-নার্সের শাস্তির দাবি | বাংলাদেশ

<![CDATA[

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসকের অবহেলায় স্বপন সিকদার নামে এক আইনজীবী সহকারীর মৃত্যুতে অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. জে এইচ খান লেলিনের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। সেই সঙ্গে নার্সের অপসারণ এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করা হয়।

সোমবার (০৯ জানুয়ারি) দুপুরে কলাপাড়া প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে এ দাবি করা হয়। 

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন, কলাপাড়া চৌকি আদালত আইনজীবী কল্যাণ সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার নাসির উদ্দিন, অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান সাঈদ, অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন মাহমুদ, অ্যাডভোকেট সুমনসহ আইনজীবী সহকারীগণ ও নিহতের স্বজনরা।

আরও পড়ুন: পটুয়াখালীতে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগে মামলা

বক্তারা অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. জে এইচ খান লেলিন ও নার্স আসমা বেগমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ অবিলম্বে তাদের অপসারণ দাবি করেন। অন্যথায় সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন বক্তারা।

পরে কলাপাড়া প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার মো. তৌহিদুর রহমান (সিআইপি) মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহত স্বপন সিকদারের চাচা অ্যাডভোকেট মো. নুরুজ্জামান সিকদার।

আরও পড়ুন: গাজীপুরে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে নুরুজ্জামান সিকদার বলেন, ‘২১ ডিসেম্বর ২০২২ স্বপন সিকদার শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক লেলিনের কাছে চিকিৎসার জন্য গেলে তিনি সরকারি দায়িত্ব অবহেলা করে অহেতুক পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য তার ব্যক্তিগত কলাপাড়া ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠান। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে হাসপাতালে এলে তার শ্বাসকষ্ট আরও বেড়ে যায়। অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে স্বপনকে অক্সিজেন মাস্ক পরিয়ে দেয়া হয়। দুপুর ২টার দিকে চিকিৎসকের নির্দেশে অক্সিজেন মাস্ক খুলে স্বপনকে ভর্তি দেয়া হয়। হাসপাতালের বেডে শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যায় স্বপন কর্তব্যরত নার্স আসমাকে মা সম্বোধন করে আকুতি মিনতি করার পরও তার ডিউটি শেষ বলে মাস্ক না পরিয়ে সে চলে যায়। পরে অপর নার্স অক্সিজেন সিলিন্ডারের খালি বোতল নিয়ে আসে।  এরইমধ্যে স্বপন মারা যান। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও জেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়ার পরও তারা কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় প্রতিকার চেয়ে আদালতে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে, যা পিবিআইতে তদন্তাধীন রয়েছে।’

আরও পড়ুন: চিকিৎসকের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

লিখিত বক্তব্যে অ্যাডভোকেট নুরুজ্জামান আরও বলেন, ‘ডা. লেলিন দীর্ঘ এক যুগের অধিক সময় একই কর্মস্থলে থেকে জখমীর মেডিকেল সনদ বাণিজ্যসহ একাধিক ফৌজদারি অপরাধে তার বিরুদ্ধে আদালতের সমন আদেশ আছে।’

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *