Skip to content

ইজতেমায় জুমার নামাজে লাখো মুসল্লির ঢল | বাংলাদেশ

ইজতেমায় জুমার নামাজে লাখো মুসল্লির ঢল | বাংলাদেশ

<![CDATA[

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে জুমার নামাজে দেশ ও বিদেশের লাখো মুসল্লির ঢল নামে। আল্লাহু আকবর ধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে তুরাগ তীর। সবার সুখ ও শান্তি কামনায় করেন দোয়া। ইসলামের আদর্শ দুনিয়াব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার প্রত্যাশা মুসল্লিদের।

দেশের বৃহৎ জুমার নামাজে হাজারো মুসল্লি সমবেত রাব্বুল আলামিনের দরবারে। সিজদাবনত এক প্রভুর রহমতের প্রত্যাশায়। তাইতো ময়দানে মিলেছে কামারপাড়া, বেড়িবাঁধ, টঙ্গী ব্রিজসহ গাজীপুরের একাংশ।

এদিন মাওলানা সাদ কান্ধলভীর ছেলে মাওলানা ইউসুফের ইমামতিতে জামাতে অংশ নেন দেশ ও বিদেশের ধর্মপ্রাণরা। বলছেন, এত বড় জুম্মায় অংশ নিতে পেরে তারা কৃতজ্ঞ আল্লাহর কাছে।

নরসিংদীর আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘বিশ্ব ইজতেমায় জুমার নামাজ আদায় করার জন্য এখানে এসেছি। অনেক কষ্ট করে এসেছি।’  

আরও পড়ুন:  বিশ্ব ইজতেমা / আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন সাদের বড় ছেলে ইউসুফ কান্ধলভী

শুক্রবার বাদ ফজর পাকিস্তানের মাওলানা ওসমানের আমবয়ানের মধ্যদিয়ে ইজতেমার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। তাৎক্ষণিকভাবে তা বাংলায় তরজমা করবেন মাওলানা জিয়া বিন কাসিম। জুমার পর সংক্ষিপ্ত বয়ান করেন কাকরাইলের শুরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, আসরের পর বয়ান করবেন মাওলানা সাদের মেঝ ছেলে মাওলানা সাঈদ বিন সাদ কান্দলভী, মাগরিবের পর বয়ান করবেন মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্দলভী।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম জানান, বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বেও ব্যাপক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পুরো ইজতেমা ময়দানকে কয়েকটি সেক্টরে ভাগ করে নিরাপত্তা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষে ময়দানের আশপাশে প্রায় ১০ হাজার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। ইজতেমাকে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রথম পর্বে যেসব নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল এবারও ঠিক আগের মতোই নিরাপত্তা ব্যবস্থা অটুট থাকবে।

রোববার (২০ জানুয়ারি) আখেরি মোনাজাতে সমাপ্তি হবে দুবছর বাদে হতে যাওয়া বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মুসলিম জমায়েত।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *