Skip to content

ইস্তাম্বুলে পৌঁছেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি | খেলা

ইস্তাম্বুলে পৌঁছেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি | খেলা

<![CDATA[

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের ৪৮ ঘণ্টা আগে ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক স্টেডিয়ামে পৌঁছেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি। সেখানেই উন্মোচন করা হয় ইউরোপিয়ান ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের ট্রফি। দ্বিতীয়বারের মতো ইস্তাম্বুলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল অনুষ্ঠিত হওয়ায় দর্শকদের আগ্রহ তীব্র। রোমাঞ্চকর লড়াই দেখার প্রত্যাশা সেখানকার দর্শকদের।

আর মাত্র দুদিনের অপেক্ষা। কার হাতে উঠবে রূপালী ট্রফিটা? ইউরোপ সেরার লড়াইয়ে কে হবে জয়ী। ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে কার গলায় উঠবে জয়মাল্য? ফাইনালের আগে দু’দলের সমর্থনে ভাগ হয়ে যায় তাবদ ফুটবল দুনিয়া। ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে ম্যানচেস্টার সিটি আর ইন্টার মিলান। চলতি মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতে ট্রেবল জয়ের হাতছানি ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটির সামনে। আর ইতালিয়ান জায়ান্ট ইন্টার মিলানও বদ্ধপরিকর গার্দিওলার স্বপ্ন ভেঙে সেরাদের সেরা হয়ে শিরোপা উঁচিয়ে ধরতে।

ইউরোপিয়ান ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াই মঞ্চস্থ করতে পুরোপুরি প্রস্তুত ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক স্টেডিয়াম। সেজে উঠেছে পুরো নগরী। ইউসিএল ফাইনালের আগে এবার উন্মোচন করা হলো বহুল কাঙ্ক্ষিত সেই ট্রফিটা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের ৪৮ ঘণ্টা আগে ইস্তাম্বুলে পৌঁছেছে ট্রফি। ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠান ঘিরে ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক স্টেডিয়াম জুড়ে লক্ষ্য করা যায় দর্শকদের ব্যাপক উন্মাদনা।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে এবার দ্বিতীয়বারের মতো ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ইউসিএল ফাইনাল। এর আগে রোমাঞ্চকর এক ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল লিভারপুল আর এসি মিলান। এবারের ফাইনাল ঘিরেও দর্শকদের আগ্রহ চরমে।

আরও পড়ুন:  চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতে ইতিহাস রচনা করতে চান গার্দিওলা

ট্রফি দেখতে আসা এক দর্শক বলেন, ‘আমরা খুবই খুশি এখানে ইউসিএল ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। আমার মনে হয়, ট্রফিটা ম্যানচেস্টার সিটির হাতেই উঠবে। যদিও, দু’দলই খুব ভালো ফর্মে আছে।’

এদিকে ম্যানচেস্টার সিটির এক সমর্থক বলেন, ‘ইস্তাম্বুলের ইতিহাসে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচ। দারুণ একটা ম্যাচ হতে যাচ্ছে। বিশেষ করে, ম্যানসিটির খেলা দেখার অপেক্ষায় আছি আমি।’

তুরস্কে বসবাসরত এক ফুটবলপ্রেমিক বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত যে মহামারির কারণে তিন বছর পর আবারো সব কিছু স্বাভাবিক হতে যাচ্ছে। এখানে উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। রোমাঞ্চকর একটা ফাইনাল দেখার অপেক্ষায় আছি আমরা।

ইস্তাম্বুলের এই উত্তেজনা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে বাকি ৪৮ ঘণ্টা। চকচকে ট্রফিটা উঁচিয়ে ধরবে কোন দল, তা নিয়ে এখন অধীর অপেক্ষায় সমর্থকরা।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *