Skip to content

পাকিস্তানে মসজিদে বিস্ফোরণ, নিহত বেড়ে ৫৯ | আন্তর্জাতিক

পাকিস্তানে মসজিদে বিস্ফোরণ, নিহত বেড়ে ৫৯ | আন্তর্জাতিক

<![CDATA[

পাকিস্তানের পেশোয়ারে একটি মসজিদে নামাজরত পুলিশ সদস্যদের লক্ষ্য করে চালানো বোমা হামলার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৯ জনে দাঁড়িয়েছে। গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন আরও দেড় শতাধিক। হাসপাতাল কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে আল জাজিরা।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন মতে, সোমবার (৩০ জানুয়ারি) পেশোয়ারের পুলিশ লাইনস এলাকায় একটি মসজিদের ভেতরে নামাজের সময় বিস্ফোরণটি ঘটে। হামলায় মসজিদের একটি অংশ ধসে যায়। এ হামলার দায় স্বীকার করেছে বিদ্রোহী গোষ্ঠী তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি)।

পেশোয়ারের কমিশনার রিয়াজ মেহসুদ জানিয়েছেন, ধ্বংসস্তূপের নিচে বেশ কয়েকজন চাপা পড়ায় উদ্ধার অভিযান চলছে। শহরের হাসপাতালগুলোতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ

জিও নিউজ জানায়, সোমবার (৩০ জানুয়ারি) ওই মসজিদে বিপুল সংখ্যক মানুষ নামাজের জন্য জড়ো হওয়ার পর সেখানে বিস্ফোরণটি ঘটে। পেশোয়ারের লেডি রিডিং হাসপাতালের মুখপাত্র মোহাম্মদ আসিম জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত ৫৯ জন মনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ১৫৭ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন: তালেবানের দায় স্বীকার /ভাই হত্যার বদলা নিতেই মসজিদে হামলা!

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। এটিকে সন্ত্রাসী হামলা আখ্যা দিয়ে এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, যারা এ ঘটনার পেছনে রয়েছে, ইসলামের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। নিহতদের পরিবারের প্রতি শোক প্রকাশ করে তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে পুরো জাতি এখন ঐক্যবদ্ধ।

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও টুইটারে এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। এক টুইটবার্তায় তিনি বলেছেন, পেশোয়ারের পুলিশ লাইন মসজিদে নামাজের সময় সন্ত্রাসী আত্মঘাতী হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। সন্ত্রাসবাদের ক্রমবর্ধমান হুমকি মোকাবেলায় আমাদের গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের উন্নতি করা এবং আমাদের পুলিশ বাহিনীকে যথাযথভাবে সজ্জিত করা অপরিহার্য।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানে বিদ্যুৎ বিপর্যয়, নেপথ্যে বৈদেশিক মুদ্রার সংকট

এদিকে পুলিশ কর্মকর্তা সিকান্দার খান জানান, মসজিদ ভবনটির ছাদের একটি অংশ ধসে পড়েছে এবং বেশ কয়েকজন এর নিচে আটকা পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখনও চলছে উদ্ধার কাজ। পুলিশ কর্মকর্তা মীনা গুল বলেন, বোমা বিস্ফোরণের সময় তিনি মসজিদের ভেতরে ছিলেন। এসময় মসজিদের ভেতরে কমপক্ষে আড়াই শতাধিক মুসল্লি উপস্থিত ছিলেন।

পেশোয়ারের সব হাসপাতালে চিকিৎসাসেবার জরুরি অবস্থা জারি করেছেন খাইবার পাখতুনখোয়ার তত্ত্বাবধায়ক মুখ্যমন্ত্রী মুহাম্মদ আজম খান। অন্তর্বর্তীকালীন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধারকারী সংস্থাগুলোকে ত্রাণ তৎপরতা দ্রুত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

 

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *