Skip to content

ভিডব্লিউবি কর্মসূচির বিনামূল্যের চাল বিতরণে টাকা নেয়ার অভিযোগ | বাংলাদেশ

ভিডব্লিউবি কর্মসূচির বিনামূল্যের চাল বিতরণে টাকা নেয়ার অভিযোগ | বাংলাদেশ

<![CDATA[

রাজবাড়ীতে ভিডব্লিউবির কর্মসূচির বিনামূল্যের চাল বিতরণে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

উপকারভোগীদের অভিযোগ, খাদ্য গুদাম থেকে ইউনিয়ন পরিষদে চাল আনার ভাড়া বাবদ জনপ্রতি ৩০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। তবে টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন সদর উপজেলার মূলঘর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ওহিদুজ্জামান। আর তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উপপরিচালক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

 

জানা গেছে, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভালনারেবল উইমেন বেনিফিট (ভিডব্লিউবি) কর্মসূচির আওতায় অসচ্ছল, বিধবা ও তালাকপ্রাপ্তা নারীরা দুই বছর মেয়াদে (২০২৩-২৪) বিনামূল্যে মাসে ৩০ কেজি করে চাল পাচ্ছেন। শুধু খাদ্য সহায়তাই নয়, উপকারভোগী প্রত্যেকের নিজস্ব একটি ব্যাংক হিসাবও খুলে দিয়েছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে। চাল নেয়ার সময় এই অ্যাকাউন্টে ২২০ টাকা জমা করছেন উপকারভোগীরা। যা হবে তাদের ক্ষুদ্র ব্যবসা পরিচালনার জন্য প্রাথমিক মূলধন গঠন।

বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) দুপুরে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মূলঘর ইউনিয়ন পরিষদে ১৬৪ জন ভিডব্লিউবি উপকারভোগীর মধ্যে চাল বিতরণ করা হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপকারভোগীদের কাছ থেকে ২২০ টাকার জায়গায় নেয়া হচ্ছে ২৫০ টাকা। অথচ সঞ্চয় বইতে জমা করা হচ্ছে ২২০ টাকাই। চাল বিতরণের সময় একজন ট্যাগ অফিসার এবং ইউপি সচিবের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তাদের দেখা মেলেনি। ২৫০ টাকা জমা নিয়ে চাল বিতরণ করছেন ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ জাহাঙ্গীর ও ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের কাস্টমার সার্ভিস অফিসার শামীম।

উপকারভোগী মূলঘর ইউনিয়নের বাঘিয়া ঝিনাইদহ গ্রামের আকলিমা বেগম জানান, তিনি এ পর্যন্ত তিনবার চাল পেয়েছেন। প্রতিবারই ২৫০ টাকা করে জমা দিয়েছেন। ২২০ টাকা করে তার বইতে সঞ্চয় হিসেবে জমা করে। আর বাড়তি ৩০ টাকা খাদ্য গুদাম থেকে ইউনিয়ন পরিষদে চাল আনার ভাড়া বাবদ নেন ইউনিয়ন পরিষদের লোকজন।

আরও পড়ুন: অসচ্ছল নারীদের মাসে ৩০ কেজি চাল দেবে সরকার

আরেক উপকারভোগী খোদেজা বেগম জানান, তিনি জিজ্ঞেস করেছিলেন ২২০ টাকার জায়গায় কেন ২৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে। উত্তরে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ জাহাঙ্গীর তাকে বলেছেন, চাল আনার ভাড়া বাবদ ৩০ টাকা নেয়া হচ্ছে। ৩০ টাকা না দিলে চাল দেয়া যাবে না।

উপকারভোগী ছালেহা বেগম জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নির্দেশে চাল আনার ভাড়া বাবদ ৩০ টাকা করে নেন গ্রাম পুলিশ জাহাঙ্গীর। বাধ্য হয়েই বাড়তি টাকা দিয়ে তাদের চাল নিতে হয়।

অভিযুক্ত গ্রাম পুলিশ জাহাঙ্গীর ও ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের কাস্টমার সার্ভিস অফিসার শামীম বলেন, ‘উপকার ভোগীদের কাছ থেকে সঞ্চয়ে ২২০ টাকা করেই নেয়া হচ্ছে। এর বাইরে কোন টাকা নেয়া হচ্ছে না।’

চাল বিতরণের সময় ইউনিয়ন পরিষদে নিজের কক্ষেই বসে ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ওহিদুজ্জামান। তার পাশের কক্ষেই বাড়তি ৩০ টাকা করে নিয়ে চাল বিতরণ করা হচ্ছে। হাতেনাতে সাংবাদিকদের সামনে অনিয়মের বিষয়টি ধরা পড়ার পরেও উপকারভোগীদের অভিযোগ মানতে নারাজ ইউপি চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, ‘উপকারভোগীদের কাছ থেকে সঞ্চয়ের ২২০ টাকা করেই নেয়া হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে চাল আনার ভাড়া বাবদ কোনো টাকা নেয়া হচ্ছে না। ভাড়ার টাকা আমি নিজেই দিয়ে দেই।’

ইউপি সচিব আব্দুস সাত্তার মোল্যার চাল বিতরণের কক্ষে থাকার কথা থাকলেও তিনি বসে ছিলেন নিজের কক্ষে। ইউপি সচিব বলেন, ‘চাল বিতরণের বিষয়টি চেয়ারম্যান নিজে তদারকি করছেন। যে কারণে আমি ওখানে যাইনি। আর আমি জন্মনিবন্ধনের কিছু কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছি।’

আরও পড়ুন: কর্মজীবী নারীদের জন্য দশতলা বিশিষ্ট দুটি হোস্টেল উদ্বোধন

চাল বিতরণের ট্যাগ অফিসারের দায়িত্বে থাকা রাজবাড়ী সদর উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল বলেন, ‘আজ চাল দেয়া হবে তা আমাকে কেউ জানায়নি। যে কারণে আমি সেখানে যাইনি।’

রাজবাড়ী জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উপপরিচালক মো. আজমীর হোসেন বলেন, ‘ট্যাগ অফিসারকে ই-মেইলের মাধ্যমে চিঠি দিয়ে চাল বিতরণের বিষয়টি জানানো হয়েছিল। তারপরেও তিনি কেন যাননি বলতে পারছি না। যদি কোনো উপকারভোগীর কাছ থেকে সঞ্চয়ের ২২০ টাকার বাইরে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হয় তাহলে সেই টাকা উপকারভোগীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া এ বিষয়ে ভিজিডি নীতিমালা অনুসারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মার্জিয়া সুলতানা বলেন, ‘ভিডব্লিউবি কর্মসূচির চাল বিতরণে টাকা নেয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে এর সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *