Skip to content

রেফারি সব সময় রিয়ালকে বেশি সুবিধা দেয় | খেলা

রেফারি সব সময় রিয়ালকে বেশি সুবিধা দেয় | খেলা

<![CDATA[

নগর প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে কোপা দেল রে’র ম্যাচে হারটা মেনে নিতে পারেনি অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। ম্যাচের ৭৯ মিনিট পর্যন্ত লিড ধরে রাখা দলটা হারের পর দুষছে রেফারিকে। সেই দলে এবার যোগ দিলেন অ্যাতলেটিকোর প্রধান নির্বাহী জিল মারিন। তার মতে, রেফারি সব সময়ই লস ব্লাঙ্কোসদের অতিরিক্ত সুবিধা দিয়ে থাকেন। মাদ্রিদের কোচ অ্যাঞ্চেলত্তি অবশ্য সে অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছেন।

কোপা দেল রে’র কোয়ার্টার ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে ৩-১ গোলের হারের পর কেটে গেছে বেশ কয়েকদিন। তবে হারের ক্ষত এখনও শুকায়নি রোজি ব্লাঙ্কোসদের।

 

এদিন ম্যাচের ১৯ মিনিটে রিয়াল মাদ্রিদেরই সাবেক খেলোয়াড় আলভারো মোরাতার গোলে এগিয়ে গিয়েছিল অ্যাতলেটিকো। তবে ৭৯ মিনিটে বদলি হয়ে নামা রদ্রিগো অসাধারণ এক গোল করে সমতায় ফেরান দলকে। এরপর অতিরিক্ত সময়ে করিম বেনজেমা ও ভিনিসিউস জুনিয়রের গোলে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে রিয়াল।

আরও পড়ুন:শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে সেমিতে রিয়াল মাদ্রিদ

ম্যাচে অ্যাতলেটিকো যেমনই খেলুক, হারের কারণ হিসেবে রেফারিংকেই সামনে তুলে এনেছেন মারিন। তার দাবি, রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার দানি সেবায়োসকে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেওয়া উচিত ছিল। তখন ১০ জনের দল নিয়ে খেলতে হতো মাদ্রিদকে। রেফারি ইচ্ছা করেই তাকে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখাননি।

সেদিন ৪৪ মিনিটে ফারল্যান্দ মেন্দি চোট পেয়ে মাঠ ছাড়লে বদলি হিসেবে নামেন সেবায়োস। ৬৯ মিনিটে কড়া ট্যাকল করায় রেফারি হলুদ কার্ড দেখান তাকে। এর দুই মিনিট পর ফের টমাস লেমারকে ফের কড়া ট্যাকল করলে রেফারি ফাউলের বাঁশি বাজান। কিন্তু হলুদ কার্ড দেখাননি। মারিনের ক্ষোভ সেখানেই।

মারিনের আগেই অবশ্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন রোজিব্লাঙ্কোস গোলরক্ষক ইয়ান অবলাক।  তিনি বলেছিলেন, ‘এই ম্যাচে প্রতিপক্ষ ১০ জনের দলে পরিণত হয়ে যেতে পারত।’ এবার সুর মিলিয়ে প্রধান নির্বাহী বললেন, ‘এটা নতুন কিছু নয়, রেফারি সবসময়ই রিয়ালের পক্ষ নেয়।’

মারিন তার ক্ষোভ উগরে দেন এভাবে, ‘রেফারিদের প্রতি আমার অগাধ শ্রদ্ধা। আমি মনে করি, তাদের সবসময় চেষ্টা থাকে সেরাটা দেওয়ার। কিন্তু বাইরে থেকে কেউ যদি তাকান, দেখবেন, দশকের পর দশক ধরে একইভাবে চলছে।’

মারিন আরও বলেন, ‘এটা দুর্ভাগ্যজনক যে, এটা আর বিস্ময় জাগায় না। এটা এখন আর কোন খবরও মনে হয় না। যেন খুব স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে গেছে এটা। আর এটা বুঝতে আপনার শুধু ইতিহাসের দিকে তাকালেই চলবে।’

আরও পড়ুন:লস ব্ল্যাঙ্কোস ড্রেসিংরুমে আসছে আমূল পরিবর্তন

কিন্তু তাদের নগরপ্রতিদ্বন্দ্বীর প্রতি কেন এই পক্ষপাত? -সেটাও জানালেন অ্যাতলেটিকোর প্রধান নির্বাহী, ‘মাদ্রিদের শক্ত একটা প্রভাব তৈরি হয়েছে। তারা তীব্র চাপ তৈরি করে এবং এর ফলে যারাই সিদ্ধান্ত নিতে যায়, চাপে পড়ে যায়। কোনো সিদ্ধান্তে তারা (রিয়াল) ক্ষতির সম্মুখীন হলে কী হতে পারে, সে বিষয়ে সচেতন থাকে সবাই।’

তবে, রোজিব্লাঙ্কোসদের এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি রিয়াল মাদ্রিদের কোচ কার্লো আঞ্চেলত্তির। রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, রেফারির সাহায্যে নয়, বরং শ্রেয়তর দল হিসেবেই জিতেছে তার দল।

তিনি বলেন, ‘আমি মন্তব্যটা পড়িনি, যদিও আমি কিছুটা শুনেছি। আমি এটি নিয়ে কথা বলতে চাই না। আমি একটা কথা বলতে পারি যে, আমার মত একান্তই ব্যক্তিগত এবং আমি সবার মতামতকে সম্মান করি। এটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ম্যাচ ছিল, একটি নায্য ম্যাচ। আমি মনে করি আমাদের খেলার জন্য আমরা জয়ের যোগ্য। বাকি বিষয়গুলো নিয়ে আমি কথা বলব না।’

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *