Skip to content

‘হারিসের সঙ্গে উমরানের সঙ্গে তুলনা চলে না’ | খেলা

'হারিসের সঙ্গে উমরানের সঙ্গে তুলনা চলে না' | খেলা

<![CDATA[

গতি থাকলেও ধারাবাহিকতা নেই ভারতীয় তরুণ পেসার উমরান মালিকের। সে তুলনায় পাকিস্তানের হারিস রউফ অনেক বেশি ধারাবাহিক ও গতিময় বলে মনে করেন দেশটির সাবেক পেসার আকিব জাভেদ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের মতামত জানাতে গিয়ে হারিসকে বিরাট কোহলির সঙ্গে তুলনা করেন জাভেদ।

দুজন দুই দেশের বোলার। আকার আকৃতিতে একইরকম। বোলিং স্টাইল কিংবা ধরনেও পরিস্কার মিল। একই সময়ে মাঠ মাতানোয় তুলনা হবে দুজনের মধ্যে এটাই স্বাভাবিক। একজন পাকিস্তানী পেসার হারিস রউফ এবং আরেকজন ভারতের তরুণ পেস সেনসেশন উমরান মালিক।

সাম্প্রতিক সময়ে দুজনই ধারাবাহিকভাবে ঘন্টায় ১৫০ কিলোমিটার গতিতে বল করছেন। মাতাচ্ছেন আইপিএল, বিগ ব্যাশ, সিপিএল থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক ঘরানাও। কিন্তু পাকিস্তানের কিংবদন্তী পেসার আকিব জাভেদের চোখে দুজনের মধ্যে রয়েছে বেশ কিছু পার্থক্য। বলেন, বিশ্বের অন্যান্য ব্যাটারদের সঙ্গে যেমন কোহলির তুলনা হয় না, তেমনি হারিস রউফ’ও তার সমসাময়িকদের চেয়ে অনেক এগিয়ে।

আরও পড়ুন:কামিন্সের কাছে শচীন নয়, কোহলিই সেরা

আকিবের চোখে ধরা পড়েছে বেশ কিছু পার্থক্য। যার মাঝে অন্যতম হচ্ছে ধারাবাহিকতার অভাব। ওয়ানডে ম্যাচের শুরুর দিকে উমরানের বলে গতির ঝলক থাকলেও দিন শেষে তা অনেক কমে যায় বলে মনে করেন তিনি। আর এটাই তাকে হারিসের সঙ্গে রেসে অনেকটা পিছিয়ে দিচ্ছে বলে মত তার। যদিও গতির ঝড়ে দুজনকেই সমান চোখেই দেখেন তিনি।

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৯৩.৮ মাইল বা ১৫১ কিলোমিটার গতিতে বল করেছিলেন হারিস। আর আইপিএলে ১৫৭ কিলোমিটার তুললেও আন্তর্জাতিকে এখনো ১৫৬ ই সেরা উমরানের। তাই ক্রিকেটের এ পৃথিবীতে টিকে থাকতে হলে উমরানকে আরো ফিট হতে হবে বলে মনে করেন পেস কিংবদন্তী।

পাকিস্তানের সাবেক পেসার আকিব জাভেদ বলেন, ‘উমরান, হারিসের মতো এতো ফিট নয়। ওর ট্রেনিংটাও পুরোপুরি হয়নি। যে কারণে, ওয়ানডে ম্যাচে ও ধারাবাহিকভাবে গতি তুলতে পারছে না। শুরুতে ১৫০ থাকলেও পরে তা ১৩৮ হয়ে যায়। হারিস এখানে অনেক এগিয়ে। ওর ধারাবাহিকতা প্রশংসা করার মতো। দেখো গতি তোলাটাই শেষ কথা নয়। তুমি কতটা ধারাবাহিক সেটাই তোমাকে আলাদা করবে।’

বর্তমান আধুনিক ক্রিকেটে হারিসের স্কিলকে বিরাট কোহলির সঙ্গে তুলনা করেছেন আকিব জাভেদ। তার মতে, হারিস বোলারদের কোহলি। সে বিরাটের মতোই সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করে এবং নিয়ম মেনে চলে। আর এই জীবনাচরণের প্রভাব পড়ে খেলার মাঠে।

আরও পড়ুন:সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলেন শোয়েব, হুমকি দিলেন নির্মাতাদের

আকিব জাভেদ বলেন, ‘কোহলির সঙ্গে অন্যদের পার্থক্য হয়ে যায় তার ফিটনেসে। তার সুশৃঙ্খল জীবনযাপনে। হারিসও সেখানেই এগিয়ে। সে বোলারদের কোহলি। স্কিল তো অনেকের থাকে, কিন্তু সেটাকে প্রয়োগ করতে প্রয়োজন ফিটনেস এবং ট্রেনিং। তার জীবন যাপন, ট্রেনিং সব কিছুই অনেক পরিচ্ছন্ন।’

ক্রিকেটবোদ্ধাদের মতে, এ দুজনের মধ্যেই কেউ হয়তো একদিন ভেঙে ফেলবেন শোয়েব আক্তারের গতির রেকর্ডটাকেও। গড়বেন নতুন কোন ইতিহাস। তবে ১৬০ কিলোমিটার গতি তোলার চেয়ে আকিবের কাছে ধারাবাহিক হওয়াটাই পাচ্ছে অধিক গুরুত্ব।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *